প্রথম রাতে তিনবার বেহুশ করেছিল আমায় দেখুন ভিডিওতে

প্রথম রাতে তিনবার বেহুশ করেছিল আমায় দেখুন ভিডিওতে
বি: দ্র : ই্উটিউব থেকে প্রকাশিত সকল ভিডিওর দায় সম্পুর্ন ই্উটিউব চ্যানেল এর ।

এর সাথে আমরা কোন ভাবে সংশ্লিষ্ট নয় এবং আমাদের পেইজ কোন প্রকার দায় নিবেনা।
ভিডিওটির উপর কারও আপত্তি থাকলে তা অপসারন করা হবে। প্রতিদিন ঘটে যাওয়া নানা রকম ঘটনা আপনাদের মাঝে তুলে ধরা এবং সামাজিক সচেতনতা আমাদের লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য ।

জেনে নিন মেয়েদের প্রয়োজনীয় পাঁচটি বিউটি প্রোডাক্ট
শিশুকালে মায়ের লিপস্টিককে রঙ পেনসিল হিসাবে আমরা প্রায় সবাই ব্যবহার করেছি। শুধু লিপস্টিক নয়, মায়ের অন্যান্য কসমেটিক্সের উপর ছোটবেলা থেকেই একটা টান বোধ করেছি। কিন্তু ২০ বছর বয়সে পা দেওয়ার পর এই আকর্ষণের ধরণটা একটু বদলে যায় মেয়েদের ক্ষেত্রে। এই সময় রঙ পেনসিল নয়, ঠোটকে রাঙিয়ে তোলার জন্য প্রয়োজন হয় লিপস্টিকের।

এছাড়া বয়ঃসন্ধিতে পিম্পলের সমস্যা তো সব তরুণীদের কাছেই বড় সমস্যা। এই সময়ে তা ঢাকার জন্য নানা ধরণের ত্বকের প্রোডাক্ট ব্যবহার করতে শুরু করি। কিন্তু সাজগোজের বিষয়টির সঙ্গে নতুন করে পরিচিত হওয়ার প্রয়োজন পড়ে এই সময়টিতে। আর নতুন করে পরিচিত হওয়ার জন্য আবশ্যিক কতগুলি প্রোডাক্ট আপনার কাছে অবশ্যই থাকা উচিত৷ সেগুলি হল:-

১) মাসকারা: সবথেকে প্রথমেই তরুণীদের প্রয়োজন একটি মাসকারা। একটি ভালো মাসকারা আপনার চোখের পলকগুলিকে আরও ঘন দেখাতে সাহায্য করে। অনেকেই মাসকারা লাগানোর পদ্ধতিকে জটিল ভেবে মাসকারা ব্যবহার করেন না। কিন্তু কয়েকবার প্র্যাকটিস করলেই আপনি পারদর্শী হয়ে উঠবেন মাসকারা লাগাতে। যা আপনার চোখের পলকগুলিকে আরও ঘন ও আকর্ষণীয় করে তুলবে।

২) কলসিলার: আগেই বলা হয়েছে, এই বয়সের সব থেকে বড় সমস্যা পিম্পল। এগুলিকে ঢাকতে আপনার প্রয়োজন কনসিলারের। তবে উপযুক্ত কনসিলার, ফাউন্ডেশন এবং সানস্ক্রিন নির্বাচন করতে আপনার একটু অসুবিধা হতে পারে। চিন্তা করবেন না। বেছে নিন সিসি অর্থাৎ কালার কারেক্টিং ক্রিম৷ যা এসপিএফ ও ময়স্চরাইজার সম্পন্ন হবে। এই ক্রিমটি আপনার ত্বককে উজ্জ্বল করতে সাহায্য করবে।

৩) কাজল: আপনার মুখের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল চোখ। একটি কালো কাজল ব্যবহার করে আপনি আপনার চোখকে আকর্ষণীয় করে তুলতে পারেন। চেষ্টা করুন স্মাজ-প্রুফ কাজল কিনতে৷ স্মোকি আই আঁকতে এই ধরণের পেনসিল আপনাকে সাহায্য করবে ও আপনাকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলবে। তবে বর্তমান সময়ে শুধু কালো রঙ নয়, নীল, সবুজ, বেগুনী, সোনালী ইত্যাদী বিভিন্ন রঙের কাজল কিনতে পাওয়া যায়। এগুলি আপনি আই লাইনার হিসাবেও ব্যবহার করতে পারবেন।

৪) লিপস্টিক: একটি সঠিক বর্ণের লিপস্টিক আপনাকে এক মুহুর্তে উজ্জ্বল করে তুলতে পারে। তাই নিজের ত্বকের বর্ণের সঙ্গে মানানসই লিপস্টিক ব্যবহার করুন। বিভিন্ন অনুষ্ঠানের জন্য আপনি বিভিন্ন বর্ণের লিপস্টিকও ব্যবহার করতে পারেন। যেমন বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে যাওয়ার সময় লাল অথবা কমলা রঙের লিপস্টিক ব্যবহার করতে পারেন।

৫) ব্লাশ: এমন কিছু দিন থাকে যখন আপনার মুখ অত্যন্ত অনুজ্জ্বল থাকে এবং কিছু করেই সেই অনুজ্জ্বলতাটা আপনি কাটাতে পারেন না। এই দিনগুলির জন্য আপনার প্রয়োজন ব্লাশের। সঠিক পদ্ধতিতে ব্লাশ লাগালে তা সঙ্গে সঙ্গে আপনার মুখে উজ্জ্বলতা এনে দেয়। চেষ্টা করুন ন্যাচরাল রঙের ব্লাশ ব্যবহার করতে।

বলা যেতে পারে এই বয়স থেকেই মেকআপের উপর অধিক নজর দেন তরুণীরা। কিন্তু অনেকে আবার প্রয়োজন অতিরিক্ত মেকআপ ব্যবহার করেন। যেকোন নতুন ধরণের প্রোডাক্ট এলেই কিনে ফেলেন। বর্তমানে বাজারে বহু নামি মেকআপ ব্যান্ড রয়েছে। তবে নামি মাত্রেই যে তা আপনার ত্বকের জন্য ভালো হবে তার কোন নিশ্চয়তা নেই। আর সেই সব প্রোডাক্ট ব্যবহারের ফল হীতে বিপরীত হতে পারে। তাই কোন প্রোডাক্ট কেনার আগে দেখে নিন সেটি আপনার ত্বকের সঙ্গে মানানসই কিনা। তারপরই সেই প্রোডাক্টটি কিনুন।

আরএম-৩২/০৬-০৩ (লাইফস্টাইল ডেস্ক, তথ্যসূত্র: সংবাদপ্রতিদিন)